Back

ⓘ সংস্কৃতি




                                               

সংস্কৃতি

সংস্কৃতি হলো সেই জটিল সামগ্রিকতা যাতে অন্তর্গত আছে জ্ঞান, বিশ্বাস, নৈতিকতা, শিল্প, আইন, আচার এবং সমাজের একজন সদস্য হিসেবে মানুষের দ্বারা অর্জিত অন্য যেকোনো সম্ভাব্য সামর্থ্য বা অভ্যাস।ওয়ারউইক বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত ভাষাতত্ত্বের অধ্যাপিকা হেলেন স্পেনসার-ওটেইয়ের মতে, সংস্কৃতি হলো কিছু বুনিয়াদি অনুমান, মূল্যবোধ ও জীবনের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গির, বিশ্বাস, নীতিমালা, প্রক্রিয়া এবং আচরণিক প্রথার অস্পষ্ট সমষ্টি–যা এক দল মানুষ ভাগ করে নেয় এবং সেই সমষ্টি দলের প্রত্যেক সদস্যের আচরণকে এবং তার নিকট অন্য সদস্যের আচরণের অর্থ বা সংজ্ঞায়নকে প্রভাবিত করে ।

                                               

ইসলামি সংস্কৃতি

প্রাথমিকভাবে ইসলামী সংস্কৃতি শব্দটি ধর্মনিরপেক্ষ একাডেমিয়ায় ঐতিহাসিকভাবে ইসলামী মানুষদের প্রচলিত সাংস্কৃতিক প্রথার বর্ণনায় ব্যবহৃত হয়। যেহেতু ইসলাম ধর্৭ম শতাব্দিতে আরবে উৎপত্তি লাভ করেছিল, তাই মুসলিম সংস্কৃতির শুরুটা ছিল প্রধানত আরবীয়। ইসলামী সাম্রাজ্যগুলোর পরিধি দ্রুত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে, মুসলিম সংস্কৃতিও ইরানি, বাংলাদেশি, তুর্কী, পাকিস্তানি, মঙ্গল, চীনা, ভারতীয়, মালয়, সোমালীয়, মিশরীয়, ইন্দোনেশীয়, ফিলিপাইন, গ্রিক, রোমক, বাইজেন্টাইন, স্প্যানিশ, সিসিলিয়, বলকানীয়, পশ্চিমা সংস্কৃতির দ্বারা প্রভাবিত এবং তাদের সম্পৃক্ত হয়ে পড়ে।

                                               

বাংলার সংস্কৃতি

বাংলার সংস্কৃতি ধারণ করে আছেন দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের বাঙালিরা, যার মধ্যে বাংলাদেশ এবং ভারতের পশ্চিম বাংলা, ত্রিপুরা এবং আসাম, যেখানে বাংলা ভাষা প্রধান এবং দাপ্তরিক। বাংলার রয়েছে ৪ হাজার বছরের ইতিহাস। বাঙালিরাই এখানের সমাজের প্রায় সবটা জুড়ে আছেন। ভারতীয় উপমহাদেশের এই অঞ্চলের রয়েছে স্বকীয় ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতি। বাংলা ছিলো তৎকালীন সবচেয়ে ধনী অঞ্চল যারা উপমহাদেশীয় রাজনীতির এবং সংস্কৃতির রাজধানী। ১৯৪৭ এর দেশভাগেপর বাংলার সংস্কৃতি ক্ষয় হতে থাকে। বাংলাদেশ বিশেষ করে বাংলাভাষী মুসলিমরাই বাংলাকে ধারণ করে রাখেন যেখানে পুরো অঞ্চলে সংখ্যাগরিষ্ঠতা ছিলো হিন্দুদের। ইহা বলার অপেক্ষা রাখেনা যে মুসলমান ...

                                               

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়

সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের একটি মন্ত্রণালয় ।বাংলাদেশ সরকারের অন্যতম এ সংস্থাটি দেশীয় সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য সংরক্ষণ, গবেষণা, উন্নয়ন ও পুরাতত্ত্ব, স্থাপত্য, ভাস্কর্য, লাইব্রেরি উন্নয়ন এবং বাংলা ভাষার উন্নয়ন,সাংস্কৃতিক পরিবেশের উৎকর্ষসাধন, সাংস্কৃতিক পণ্য উৎপাদন ও নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে সংস্কৃতি-সংশ্লিষ্ট বিবিধ আইন-বিধি-বিধান-প্রবিধান প্রণয়ন এবং বাস্তবায়নের লক্ষ্যে কাজ করে থাকে।

                                               

মঙ্গোলিয়ার সংস্কৃতি

মঙ্গোলিয়ার সংস্কৃতি মোঙ্গলদের যাযাবর জীবনযাত্রার দ্বারা গভীরভাবে প্রভাবিত হয়েছে। এছাড়া চীন, তিব্বত ও তিব্বতী বৌদ্ধধর্ম বেশ প্রভাব রেখেছে। এর বাইরে ২০ শতকেপর থেকে রাশিয়া এবং রাশিয়ার মাধ্যমে ইউরোপীয় সংস্কৃতিও প্রভাব ফেলতে শুরু করেছে।

                                               

সিলেটি সংস্কৃতি

সিলেটি সংস্কৃতিতে এর রান্নাবান্না, সাহিত্য, ভাষা, গান, ঐতিহ্য ইত্যাদি ফুটে উঠেছে। সিলেটি ছাড়াও মণিপুরী, পাত্র খাসিয়া, চাকমা, ত্রিপুরা এবং সাঁওতাল জাতিগোষ্ঠীর লোক সিলেটে বসবাস করে। যারফলে এই অঞ্চলের ভাষা, ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং সংস্কৃতি বেশ বৈচিত্র্যময় এবং সমৃদ্ধ। সিলেটের সংস্কৃতি বৈদিক সংস্কৃতির তুলনায় অনার্য সংস্কৃতি দ্বারা অধিক সমৃদ্ধ। সিলেটের ভাষা ও সংস্কৃতিতে আসামের প্রভাব লক্ষণীয় কারণ এটি পূর্বে আসাম রাজ্যের একটি অংশ ছিল। কথিত আছে যে ব্রহ্মযুদ্ধের পরে মণিপুরীরা শ্রীহট্ট এবং কাছারে আসে এবং ঈশ্বরের উপাসনা করে লাই নামে একটি নৃত্য পরিবেশন করত। যা এই অঞ্চলের প্রাচীন সংস্কৃতিতে অন্তর্ভুক্ত ...

                                               

বিকল্প সংস্কৃতি

বিকল্প সংস্কৃতি বলতে আমরা বুঝি এক ধরনের সংস্কৃতি যা মূলধারার সংস্কৃতি বা জনপ্রিয় সংস্কৃতির আওতা থেকে বা প্রভাব থেকে বাইরে থাকে এবং এটি অন্য এক বা একাধিক উপসংস্কৃতির প্রভাবে থাকে। এইসব উপসংস্কৃতির মধ্যে আবার মিল খুব সামান্য, তাদের পারস্পরিক গোপন থাকার প্রবণতা ছাড়া। কিন্তু সাংস্কৃতিক বিদ্যার এই গোপন থাকার প্রবণতাকে ব্যবহার করা হয় তাদের শ্রেণীবিভাগ করার জন্য যার নাম দেয়া হয়েছে বিকল্প সংস্কৃতি । একে আবার অধিকতর রাজনৈতিক শব্দের সাথে তুলনা করা হয় যা হলো বিপরীত সংস্কৃতি।

                                               

ভারতের সংস্কৃতি

ভারতের ভাষা, ধর্মবিশ্বাস, নৃত্যকলা, সংগীত, স্থাপত্যশৈলী, খাদ্যাভ্যাস ও পোষাকপরিচ্ছদ এক অঞ্চলে এক প্রকারের। কিন্তু তা সত্ত্বেও এই সবের মধ্যে একটি সাধারণ একাত্মতা লক্ষিত হয়। ভারতের সংস্কৃতি কয়েক সহস্রাব্দ-প্রাচীন এই সব বৈচিত্র্যপূর্ণ আঞ্চলিক সংস্কৃতি ও রীতিনীতিগুলির একটি সম্মিলিত রূপ। ভারতীয় সভ্যতা প্রায় আট হাজার বছরের পুরনো। এই সভ্যতার একটি আড়াই হাজার বছরের লিখিত ইতিহাসও রয়েছে। এই কারণে কোনো কোনো ঐতিহাসিক এই সভ্যতাটিকে "বিশ্বের প্রাচীনতম জীবন্ত সভ্যতা" মনে করেন। ভারতীয় ধর্মসমূহ, যোগ ও ভারতীয় খাদ্য - ভারতীয় সভ্যতার এই উপাদানগুলি সমগ্র বিশ্বে গভীর প্রভাব বিস্তার করতে সক্ষম হয়েছে

                                               

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংস্কৃতি সংসদ

সংস্কৃতি সংসদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক সংগঠন। এটি ১৯৫১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে এই সংগঠনটির নাম পরিবর্তন করে "ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সংস্কৃতি সংসদ" রাখা হয়।

                                               

বাংলাদেশের সংস্কৃতি

বাংলাদেশের সংস্কৃতি বলতে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ বাংলাদেশের গণমানুষের সাহিত্য, সংগীত, নৃত্য, ভোজনরীতি, পোষাক, উৎসব ইত্যাদির মিথস্ক্রিয়াকে বোঝানো হয়ে থাকে। বাংলাদেশের রয়েছে শত বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্য। বাংলাদেশের সংস্কৃতি স্বকীয় বৈশিষ্ট্যের কারণে স্বমহিমায় উজ্জ্বল। বাংলাদেশ পৃথিবীর সমৃদ্ধ সংস্কৃতির ধারণকারী দেশগুলোর মধ্যে অন্যতম।

                                               

ভুটানের সংস্কৃতি

হিমালয় পর্বতমালার কোলে শায়িত ভুটান তার ভৌগলিক অবস্থানের কারণে নিজেকে বাইরের সাংস্কৃতিক প্রভাব থেকে রক্ষা করতে পেরেছে। ভুটান একটি জনবিরল দেশ, এটির দক্ষিণে ভারত সীমান্ত এবং উত্তরে গণচীনের সীমান্ত। দেশটি তার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য এবং স্বাধীনতা রক্ষার লক্ষ্যে সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিকভাবে কঠোর বিচ্ছিন্নতাবাদী নীতি অনুসরণ করে। শুধুমাত্র বিংশ শতাব্দির শেষ শতক থেকে সীমিত সংখ্যক বিদেশীদেরকে ভুটান ভ্রমণের অনুমতি দেওয়া হয়। এই পদ্ধতির ফলে ভুটান সফলভাবে তাদের সংস্কৃতির অনেক দিক রক্ষা করতে সক্ষম হয়, যা মধ্য-সপ্তদশ শতাব্দির সংস্কৃতির সাথে প্রত্যক্ষভাবে সম্পৃক্ত। ভুটানের আধুনিক সংস্কৃতি তাদের প্রাচীন সংস্ক ...

                                               

ইরানের সংস্কৃতি

ইরানের সংস্কৃতি, পারস্যের সংস্কৃতি হিসেবেও পরিচিত, বিশ্বের অন্যতম প্রভাব বিস্তারকারী সংস্কৃতি। ইরানকে সভ্যতার দোলনা হিসেবে অভিহিত করা হয়। বিশ্বে ইরানের আধিপত্য বিস্তারকারী ভূ-রাজনৈতিক অবস্থান ও সংস্কৃতির কারণে ইরান পশ্চিমে ইতালি, ম্যাসিডোনিয়া, ও গ্রিস, উত্তরে রাশিয়া ও পূর্ব ইউরোপ, দক্ষিণে আরব উপদ্বীপ এবং পূর্বে ভারত উপমহাদেশ ও পূর্ব এশিয়ার সংস্কৃতি ও জনগণের উপর প্রভাব বিস্তার করে। ইরানের সাংস্কৃতিক পরিচয় ও এর ঐতিহাসিক দীর্ঘস্থায়িত্বের অন্যতম বৈশিষ্ট হল সারগ্রাহী সাংস্কৃতিক স্থিতিস্থাপকতা।

                                               

অতিথি

যে ব্যক্তিকে গৃহে, সামাজিক অনুষ্ঠানে কিংবা প্রচারমাধ্যমে সাদরে আপ্যায়ন করা হয় তাকে অতিথি বলে। প্রায় সব ধর্মে অতিথি বা মেহমান কে ভালো ভাবে আপ্যায়ন করার নির্দেশ রয়েছে। মুসলিমদের ধর্মে অতিথি আপ্যায়ন একটি মহৎ কাজের মধ্যে পরে। হিন্দুরা মনে করেন অতিথি হচ্ছে তাদের দেবতার অংশ।

                                               

অশ্লীলতা

অশ্লীলতা হল একটি পরিভাষা, যা এমন সব শব্দ, চিত্র ও কার্যক্রমকে বোঝাতে ব্যবহৃত হয় যেগুলো সমসাময়িক অধিকাংশ মানুষের যৌন নৈতিকতার দৃষ্টিতে অপরাধ বা দোষ হিসেবে বিবেচিত। উক্ত শব্দটি প্রায়শই আইনগত দৃষ্টিকোণ হতে ব্যবহৃত হয়। এর মূল ইংরেজি শব্দ অবসিনিটি এসেছে ল্যাটিন শব্দ অবসেনাস থেকে, যার অর্থ "দুষ্ট, ঘৃণিত, রুচিহীন"। এমনকি যদিও উক্ত শব্দটি দীর্ঘ সময় ব্যাপী যৌনতা-বিষয়ক সংজ্ঞা হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে এসেছে, তবু বর্তমান সময়ে "উস্কামিমুলক ঘৃণ্য কাজ" অর্থেও যেমন obscene profit বা নোংরা মুনাফা, obscenity of war বা যুদ্ধের নোংরামি ইত্যাদি শব্দটির ব্যবহার দেখা যায়। সাধারণভাবে এটি অভিশাপ অর্থে ব্যবহৃত হ ...

                                               

কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি

কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি, CWC ইউরোপের একটি বৃহৎ পুরাতাত্ত্বিক দিগন্ত নিয়ে গঠিত, এবং এটি আনু. খ্রিপূ ২৯০০ অব্দ থেকে আনু. ২৩৫০ অব্দ পর্যন্ত বর্তমান ছিল। সুতরাং বলা যায় এই সংস্কৃতি নব্যপ্রস্তর যুগের শেষ পর্যায় থেকে, তাম্র যুগ হয়ে ব্রোঞ্জ যুগের শুরুর দিকে এসে শেষ হয়। কর্ডেড অয়ার সংস্কৃতি একটি বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে বিস্তৃত ছিল, পশ্চিমে রাইন নদী থেকে পূর্বে ভোলগা নদী পর্যন্ত অঞ্চল নিয়ে এটি উত্তর ইউরোপ, মধ্য ইউরোপ ও পূর্ব ইউরোপের বিভিন্ন অঞ্চলে বিস্তৃত হয়।াহ হাক প্রমুখ গবেষণা অনুসারে কর্ডেড অয়ার জনগোষ্ঠী ইয়াম্নায়া সংস্কৃতির জনগোষ্ঠীর সাথে জিনগতভাবে ঘনিষ্ঠ ছিল। গবেষণাটিতে লেখা হয়, "ইউরোপে ...

                                               

কে-পপ

কে-পপ একটি সঙ্গীত রীতি যেটির উৎপত্তি দক্ষিণ কোরিয়ায়। এটি মূলত সেই দেশের পপ সংস্কৃতির প্রতিনিধিত্ব করছে। dance-pop, pop ballad, electropop, R&B, rock, jazz, popera, hip-hop এবং classical music এসবই K-Pop এর মধ্যে দেখা যায়। কে-পপ এর জনপ্রিয়তা বাড়তে থাকে যখন ১৯৯২ সালে গঠিত ব্যান্ড Seo Taiji and Boys তাদের অন্য ধাঁচের সঙ্গীত দর্শকের সামনে হাজির করে। ২১ শতকে জাপানিজ মার্কেটে ঢোকাপর এর জনপ্রিয়তা আরও বাড়তে শুরু করে, এশিয়ায় বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মধ্য দিয়ে এটি দ্রুতই ভাইরাল হয়ে উঠে এবং টিনেজারদের মধ্যে রয়েছে এর বিপুল জনপ্রিয়তা। কে-পপের বিস্তৃতি ল্যাটিন আমেরিকা, ভারত, উত্ ...

                                               

কোরীয় সংস্কৃতি

উত্তর এবং দক্ষিণ কোরিয়ার বর্তমান রাজনৈতিক বিভক্তিকরণই অপসারণ করেছে আধুনিক কোরীয় সংস্কৃতি । তথাপি উভয় রাষ্ট্রের পাঁচ হাজারাধিক বছরের ইতিহাস এবং বিশ্বের প্রাচীন ইতিহাসের মধ্যে অন্যতম। সুদূর প্রাচীনকালে কোরীয় উপদ্বীপ এর লগ্ন থেকেই সেখানে মানবজাতি বসবাস করতে আরম্ভ করে।

                                               

গুহাচিত্র

গুহাচিত্র হল সেই সব চিত্র যা প্রাচীন গুহার দেয়াল বা ছাদে আবিষ্কার করা হয়েছে। বিশেষ করে সেই সকল চিত্রকর্ম যা প্রাগৈতিহাসিক কালে মানুষেরা প্রায় ৪০,০০০ হাজার বছর আগে অঙ্কন করেছিল। এশিয়া ও ইউরোপে এই গুহা চিত্রগুলি পাওয়া গিয়েছে। পুরাতন প্রস্তরযুগের এই সকল চিত্রকর্ম ঠিক কি কারণে অঙ্কন করা হয়েছিল তা জানা যায়নি। সংগৃহিত প্রমাণাদি থেকে ইঙ্গিত পাওয়া যায় যে নিছক গৃহসজ্জার জন্য এই চিত্রগুলো অঙ্কন করা হয়নি। কারণ, এই গুহাগুলি বা তার আশেপাশে মানুষের কোন বসতি থাকার প্রমাণ পাওয়া যায়নি। তাছারা প্রায়ই সব গুহাই খুব দুর্গম এলাকায় অবস্থিত। কিছু মতবাদ অনুযায়ী, গুহাচিত্র দ্বারা প্রগৈতিহাসিক মানুষে ...

                                               

চুম্বন

চুম্বন হল দুই ঠোঁটের স্পর্শ দিয়ে কাউকে আদর করা বা স্নেহ প্রকাশ করা। সাধারণভাবে প্রেম, কাম, স্নেহ, অনুরাগ, শ্রদ্ধা, সৌজন্য অথবা শুভেচ্ছা প্রকাশার্থে অন্য কারো চিবুক, অধরোষ্ঠ, করতল, কপাল বা অন্য কোন অঙ্গে ঠোঁট অর্থাৎ অধরোষ্ঠ স্পর্শ করা। সৌভাগ্য কামনায়, সম্মান প্রদর্শনার্থে বা কিছু প্রাপ্তির আনন্দ প্রকাশার্থে ঐ বস্তুতে অধরোষ্ঠ স্পর্শ করানোও চুম্বন। স্নেহ-ভালবাসা প্রকাশার্থে চুম্বন একটি সাধারণ প্রথা। যৌনসঙ্গমকালে চুম্বন একটি গুরুত্বপূর্ণ শৃঙ্গার। বাৎস্যায়নের কামসূত্রে বিভিন্ন প্রকার চুম্বনের বর্ণনা পাওয়া যায়। তবে আধুনিক কাল অবধি তাহিতি এবং আফ্রিকা মহাদেশের কোনো কোনো আদিবাসী সমাজে চুম্বন প ...

                                               

ছড়া (সাহিত্য)

ছড়া মানুষের মুখে মুখে উচ্চারিত ঝংকারময় পদ্য। এটি সাধারণত স্বরবৃত্ত ছন্দে রচিত। এটি সাহিত্যের একটি প্রচীন শাখা। যিনি ছড়া লেখেন তাকে ছড়াকার বলা হয়। ‘ছেলেভুলানো ছড়া’, ‘ঘুম পাড়ানি ছড়া’ ইত্যাদি ছড়া দীর্ঘকাল যাবৎ প্রচলিত। প্রাচীনকাল থেকে ইংরেজি ভাষায় ননসেন্স রাইম প্রচলিত রয়েছে কারণ ছড়ার প্রধান দাবি ধ্বনিময়তা ও সুরঝংকার, অর্থময়তা নয়। প্রাচীন যুগে ‘ছড়া’ সাহিত্যের মর্যাদা না পেলেও বর্তমানে সে তার প্রাপ্য সম্মান অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। যদিও এখনও অনেকেই ছড়াসাহিত্যকে শিশুসাহিত্যেরই একটি শাখা মনে করেন কিংবা সাহিত্যের মূলধারায় ছড়াকে স্বীকৃতি দিতে চান না। কেউ কেউ ছড়াকে কবিতা বলার পাশ ...

                                               

ধর্ম

ধর্ম বলতে বোঝায় কোনো প্রাণী বা বস্তুর বৈশিষ্ট্য। মহাবিশ্বের প্রতিটি প্রাণী এবং বস্তুর স্ব স্ব ধর্ম অর্থাৎ বৈশিষ্ট্য রয়েছে। বস্তুর যেমন মৌলিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে ঠিক তেমনি প্রাণীদেরও মৌলিক বৈশিষ্ট্য রয়েছে। প্রাণীদের ক্ষেত্রে ভিন্ন ভিন্ন গোত্রের প্রাণীদের ভিন্ন ভিন্ন বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করা যায়। তবে "Homo sapiens"দের ক্ষেত্রে ব্যাপারটি একটু ভিন্ন ধরনের। মানুষ হচ্ছে বর্তমান পৃথিবীর সবচেয়ে প্রভাব বিস্তারকারী প্রাণী। একমাত্র মানুষদের ক্ষেত্রেই এ ধর্ম কিংবা বৈশিষ্ট্য দুই ধরনের হয়ে থাকে। ভৌত ধর্ম বা বৈশিষ্ট্য এবং মানবিক ধর্ম অথবা বৈশিষ্ট্য| ক) ভৌত ধর্ম বা বৈশিষ্ট্য এটা মূলত ভৌত বা বাহ্যিক বা গঠনগ ...

                                               

নিট উইট রিজ

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার ক্যাম্ব্রিয়াতে আড়াই একর জমির উপর নিট উইট রিজ আসলে একটি বাড়ি। শিল্পী আর্থার "আর্ট" হ্যারল্ড বিয়াল ১৯২৮ সালে পাহাড়ের অনেক জায়গা কিনে নিয়েছিলেন এবং পরবর্তী ৫০ বছরের বেশিরভাগ সময় কেবল একটি পিক এবং এবং একটি শাবল নিয়ে খোদাই করে কাটিয়ে দিয়েছিলেন; নিজেই একটি পাহাড়ের দুর্গ তৈরি করেছিলেন।

                                               

পাঞ্জাবের লোকনৃত্য

পাঞ্জাবি নাচ, পাঞ্জাব অঞ্চলের আদি বাসিন্দা এবং ভারত ও পাকিস্তানের দুপাশের সীমান্ত এলাকাজুড়ে থাকা মানুষের লোকনৃত্য এবং ধর্মীয় নৃত্য শৈলীর একটি সমন্বয়। পাঞ্জাবি নৃত্য শৈলী খুব উচ্চ লয় থেকে মৃদু ও মন্থর গতির সব ধরনের হয়। পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য নির্দিষ্ট শৈলী আছে। কিছু নাচ ধর্মনিরপেক্ষ, এবং কিছু ধর্মীয় পরিপ্রেক্ষিতে উপস্থাপিত হয়। এই নাচগুলি সাধারণত উৎসব উদযাপনে করা হয়, যেমন ফসল ফলাবার সময়বৈশাখী, বিবাহ, বিভিন্ন মেলায় উৎসব যথা লোরি, জশন-এ-বাহারান বসন্ত উৎসব ইত্যাদি, যেখানে সবাইকে নাচ করতে উত্সাহ দেওয়া হয়। সাধারণত বিবাহিত পাঞ্জাবি দম্পতিরা একসঙ্গে নাচ করেন। স্বামী, মাঝেমাঝে হাত উপরে ...

                                               

বিবাহ

বিবাহ হল একটি সামাজিক বন্ধন বা বৈধ চুক্তি যার মাধ্যমে দুজন মানুষের মধ্যে দাম্পত্য সম্পর্ক স্থাপিত হয়। বিভিন্ন দেশে সংস্কৃতিভেদে বিবাহের সংজ্ঞার তারতম্য থাকলেও সাধারণ ভাবে বিবাহ এমন একটি প্রতিষ্ঠান যার মাধ্যমে দুজন মানুষের মধ্যে ঘনিষ্ঠ ও যৌন সম্পর্ক সামাজিক স্বীকৃতি লাভ করে। কিছু সংস্কৃতিতে, যে কোন প্রকারের যৌন কর্মকাণ্ডে প্রবৃত্ত হওয়ার পূর্বে বিবাহ সম্পন্ন করাকে বাধ্যতামূলক হিসেবে পরামর্শ দেওয়া হওয়া অথবা বিবেচনা করা হয়। বিশদ বিবৃত সংজ্ঞার ভাষায় বলতে গেলে, বিবাহ হল একটি বৈশ্বিক সার্বজনীন সংস্কৃতি। বিবাহ সাধারণত কোন রাষ্ট্র, কোন সংস্থা, কোন ধর্মীয় কর্তৃপক্ষ, কোন আদিবাসী গোষ্ঠী, কোন স্ ...

                                               

ভাঙ্গরা নৃত্য

পাঞ্জাবি নাচ, পাঞ্জাব অঞ্চলের আদি বাসিন্দা এবং ভারত ও পাকিস্তানের দুপাশের সীমান্ত এলাকাজুড়ে থাকা মানুষের লোকনৃত্য এবং ধর্মীয় নৃত্য শৈলীর একটি সমন্বয়। পাঞ্জাবি নৃত্য শৈলী খুব উচ্চ লয় থেকে মৃদু ও মন্থর গতির সব ধরনের হয়। পুরুষ এবং মহিলাদের জন্য নির্দিষ্ট শৈলী আছে। কিছু নাচ ধর্মনিরপেক্ষ, এবং কিছু ধর্মীয় পরিপ্রেক্ষিতে উপস্থাপিত হয়। এই নাচগুলি সাধারণত উৎসব উদযাপনে করা হয়, যেমন ফসল ফলাবার সময়বৈশাখী, বিবাহ, বিভিন্ন মেলায় উৎসব যথা লোরি, জশন-এ-বাহারান বসন্ত উৎসব ইত্যাদি, যেখানে সবাইকে নাচ করতে উৎসাহ দেওয়া হয়। সাধারণত বিবাহিত পাঞ্জাবি দম্পতিরা একসঙ্গে নাচ করেন। স্বামী, মাঝেমাঝে হাত উপরে ত ...

                                               

ভুটানী রন্ধনশৈলী

ভুটানী রন্ধনশৈলী ভুটানে প্রচলিত বিভিন্ন স্থানীয় রন্ধনপ্রণালী। ভুটানী রন্ধনশৈলীতে প্রচুর পরিমাণে লাল চাল, ভুট্টা ইত্যাদির ব্যবহার হয়। পাহাড়ের খাদ্যতালিকায় মাংসের উৎস হিসেবে আছে মুরগী, চমরীগাইয়ের মাংস, শুকনো গোমাংস, পোর্ক, শুকরের চর্বি এবং ভেড়ার মাংস ইত্যাদি।শীতকালে স্যুপ ও মাংসের ঝোল, ভাত, ফার্ন, ডাল ও শুটকি সব্জি, মরিচের ঝাল ও পনির দিয়ে রান্না ভুটানীদের প্রিয় খাদ্য। বেঁচে যাওয়া সব্জির সংগে ভাত মিশিয়ে যোউ শুঙ্গো তৈরী করা হয়। বড়, সবুজ মরিচ দিয়ে তৈরী মশলাদার এমা ডাটসি ভুটানীদের গর্বের খাবার এবং এটাকে জাতীয় খাবারও বলা যায়।

                                               

মাদার গান

মাদার গান বাংলার লোকসংস্কৃতির এক অমূল্য সৃষ্টি। এ গানের উৎপত্তিস্থল বাংলাদেশের নাটোর জেলা‍র চলনবিল অঞ্চলে। এছাড়া দিনাজপুর, রংপুর, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, কেরানীগঞ্জ, কুষ্টিয়া, নেত্রকোনাসহ আরও কয়েকটি অঞ্চলে এ গান মাদারের বাঁশ তোলা বা মাদার বাঁশের জারি নামে প্রচলিত।

                                               

মেট্রোসেক্সুয়াল

মেট্রোসেক্সুয়াহল একটি দ্বৈত বৈশিষ্ট্য, যা মেট্রোপলিটন ও সেক্সুয়াল নামক শব্দ দুটি থেকে ১৯৯৪ সালে উদ্ভূত হয়েছে। এটি সেসব পুরুষকে বোঝাতে ব্যবহৃত হয়, যারা তাদের সাজসজ্জা এবং প্রদর্শনীর ব্যাপারে অতিমাত্রায় সচেতন ও যত্নবান, এর পাশাপাশি একটি উল্লেখযোগ্য পরিমাণ সময় এবং অর্থও তারা শপিং-এর পেছনে ব্যয় করে থাকে। উক্ত নব্য-উদ্ভাবিত পরিভাষাটি সে সকল বিপরীতকামী পুরুষকে বোঝানোর ক্ষেত্রে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে, যারা বাহ্যিকভাবে সাধারণত সমকামী পুরুষদের সঙ্গে নিকটবর্তী ফ্যাশন ও জীবনশৈলী ধারণ করে থাকে। যদিও উক্ত পরিভাষাটি নির্দেশ করে যে মেট্রোসেক্সুয়ালগণ হল বিপরীতকামী, তারপরেও যে কোন যৌন অভিরুচির মানুষের ...

                                               

লোকসংস্কৃতি

লোকসংস্কৃতি লোকসম্প্রদায়ের ধর্মীয় ও সামাজিক বিশ্বাস ও আচার-আচরণ, জীবন-যাপন প্রণালী, চিত্তবিনোদনের উপায় ইত্যাদির ওপর ভিত্তি করে গড়ে ওঠা সংস্কৃতি। এটা সম্পূর্ণই তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি। দীর্ঘকাল ধরে গড়ে ওঠা এই সংস্কৃতি তাদের প্রকৃত পরিচয় বহন করে। কোনো দেশের জাতীয় সংস্কৃতির ধারা প্রধানত দুটি: নগরসংস্কৃতি ও লোকসংস্কৃতি। ভ্যাটিক্যান সিটি একটি নগররাষ্ট্র, তাই ভ্যাটিক্যানবাসীর সংস্কৃতি একটাই নগরসংস্কৃতি। কিন্তু বাংলাদেশের সংস্কৃতির ধারা তিনটি: নগরসংস্কৃতি, গ্রামসংস্কৃতি ও উপজাতীয় সংস্কৃতি। বাংলাদেশ একটি গ্রামপ্রধান দেশ। গ্রামের বিশাল জনগোষ্ঠী নিজস্ব জীবনপ্রণালীর মাধ্যমে শতকেপর শতক ধরে যে বহ ...

                                               

শ্রীলঙ্কীয় রন্ধনশৈলী

শ্রীলঙ্কীয় রন্ধনশৈলী হচ্ছে শ্রীলঙ্কায় প্রচলিত বিভিন্ন রন্ধনপ্রণালী যা বিভিন্ন ঐতিহাসিক, সাংস্কৃতিক ও অন্যান্য বিষয় দ্বারা প্রভাবিত হয়ে বর্তমান অবস্থায় উপনীত হয়েছে। বিদেশী বণিকদের আনা ফল, ইন্দোনেশীয় রন্ধনশৈলী ও দক্ষিণ ভারতীয় রন্ধনশৈলীর সহায়তায় শ্রীলঙ্কীয় রন্ধনশৈলী গড়ে উঠেছে। আজকের দিনে শ্রীলংকীয় রন্ধনশৈলীর প্রধান খাদ্য দ্রব্যের মধ্যে আছে চাল, নারিকেল এবং মশলা। শ্রীলঙ্কা অন্যতম মশলা উৎপাদনকারী দেশ এবং বিভিন্ন দেশের ব্যবসার কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হতো। ফলে এদের মশলায় অভুতপূর্ব বৈচিত্র্যতা আসে।

                                               

সংস্কৃত ভাষা

সংস্কৃত হল একটি ঐতিহাসিক ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষা এবং হিন্দু ও বৌদ্ধধর্মের পবিত্র দেবভাষা। এটি ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাগোষ্ঠীর প্রধান দুই বিভাগের একটি "শতম" ভুক্ত ভাষা। বর্তমানে সংস্কৃত ভারতের ২২টি সরকারি ভাষার অন্যতম এবং উত্তরাখণ্ড রাজ্যের অন্যতম সরকারি ভাষা। ধ্রুপদী-সংস্কৃত এই ভাষার প্রামাণ্য ভাষাপ্রকার। খ্রিষ্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীতে রচিত পাণিনির ব্যাকরণে এই প্রামাণ্যরূপটি প্রতিষ্ঠিত হয়। ইউরোপে লাতিন বা প্রাচীন গ্রিক ভাষার যে স্থান, বৃহত্তর ভারতের সংস্কৃতিতে সংস্কৃত ভাষার সেই স্থান।তাই রবীন্দ্রনাথ বলেছেন, ভারতীয় উপমহাদেশ, বিশেষত ভারত ও নেপালের অধিকাংশ আধুনিক ভাষাএই ভাষার দ্বারা প্রভাবিত। সংস্কৃত ...

                                               

সভ্যতা

একটি সভ্যতা হল কোন জটিল সমাজব্যবস্থা যা নগরায়ন, সামাজিক স্তরবিন্যাস, প্রতীকী যোগাযোগ প্রণালী, উপলব্ধ স্বতন্ত্র পরিচয় এবং প্রাকৃতিক পরিবেশের উপর নিয়ন্ত্রণের মত গুণাবলি দ্বারা বৈশিষ্ট্যমণ্ডিত। সভ্যতাকে প্রায়শই আরও কিছু সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বৈশিষ্ট্য দ্বারা সংজ্ঞায়িত করা হয় যেগুলোর উপর সভ্যতা নির্ভরশীল, আর সেগুলো হল কেন্দ্রীকরণ, মানুষ এবং অন্যান্য জীবের আবাসন, শ্রমের বিশেষায়িতকরণ, সাংস্কৃতিকভাবে সৃষ্ট উন্নয়ন আদর্শ, আধিপত্য স্থাপন, ভাস্কর্যের অনুরূপ স্থাপত্য, কর বা খাজনা আরোপ, কৃষির উপর সামাজিক নির্ভরশীলতা, এবং সম্প্রসারণের প্রবণতা। সাংগঠনিক বসবাসের ক্রমোন্নত স্তর হল সভ্যতা। এ ...

                                               

সাংস্কৃতায়ন

সাংস্কৃতায়ন বা সংস্কৃতিকরণ, ইংরেজিতে, Acculturation হলো একটি আর্থ-সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক পরিবর্তন প্রক্রিয়া, যাতে কোন সমাজ বা সংস্কৃতি অন্য সমাজের মধ্যে পরিবর্তন সূচিত করে। ঊনবিংশ শতাব্দীর শেষ দিকে আমেরিকাতে এ প্রত্যয়টি বেশ জনপ্রিয়তা লাভ করে। সাধারণত উন্নত মানের সংস্কৃতি নিম্নমানের সংস্কৃতিকে তিনভাবে প্রভাবিত করে: দেশীয় সংস্কৃতির সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেবার জন্য কিছু সংশোধন করে গ্রহণ করে। উন্নত সংস্কৃতির কিছু উপাদান গ্রহণ করে উন্নত সংস্কৃতির কিছু উপাদান বর্জন করে, এবং এ প্রক্রিয়ার ফলে সাংস্কৃতিক সংঘাতও ঘটে। যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি এবং ক্রমবর্ধমান আর্থ-সামাজিক প্রয়োজনের ফলে বিভিন্ন দেশ ও ...

                                               

সাংস্কৃতিক সাম্রাজ্যবাদ

সাংস্কৃতিক সাম্রাজ্যবাদ হল সাম্রাজ্যবাদের সাংস্কৃতিক মাত্রা। সাম্রাজ্যবাদ বলতে এখানে সভ্যতাগুলোর মধ্যে অসম সম্পর্কের সৃষ্টি এবং রক্ষণাবেক্ষণকে বোঝায়, যে সম্পর্কে একটি সভ্যতা অন্য একটি সভ্যতার উপর আধিপত্য বিস্তার করে। সুতরাং, সাংস্কৃতিক সাম্রাজ্যবাদ একটি কম শক্তিশালী সমাজের উপর সাধারণত একটি রাজনৈতিকভাবে শক্তিশালী জাতির সংস্কৃতির প্রচার ও প্রয়োগ করার অভ্যাস; অন্য কথায়, শিল্পায়ন ও অর্থনৈতিকভাবে প্রভাবশালী দেশগুলির সাংস্কৃতিক স্বৈরাচার যা বিশ্বজুড়ে নিজস্ব সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ প্রচার ও নিজ স্বার্থের অনুকূলে সভ্যতার মানদণ্ড নির্ধারণ করে দেয়। ধারণাটি বিশেষ করে ইতিহাস, সংস্কৃতি অধ্যয়ন এবং উত ...

                                               

সাহিত্য

সাহিত্য বলতে যথাসম্ভব কোনো লিখিত বিষয়বস্তুকে বুঝায়। সাহিত্য শিল্পের একটি অংশ বলে বিবেচিত হয়, অথবা এমন কোনো লেখনী, যেখানে শিল্পের বা বুদ্ধিমত্তার আঁচ পাওয়া যায়, অথবা যা বিশেষ কোনো প্রকারে সাধারণ লেখনী থেকে আলাদা৷ মোটকথা, ইন্দ্রিয় দ্বারা জাগতিক বা মহাজাগতিক চিন্তা চেতনা, অনুভূতি, সৌন্দর্য ও শিল্পের লিখিত বা লেখকের বাস্তব জীবনের অনুভূতি হচ্ছে সাহিত্য। ধরন অনুযায়ী সাহিত্যকে কল্পকাহিনি বা বাস্তব কাহিনি কিংবা পদ্য, গদ্য এই দুইভাগে ভাগ করা যায়। পদ্যের মধ্যে ছড়া, কবিতা ইত্যাদি, গদ্যের মধ্যে প্রবন্ধ, নিবন্ধ, গল্প, উপন্যাস ইত্যাদি শাখা হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা যায়। এছাড়াও অনেকে নাটককে আলাদা ...

লোকনৃত্য
                                               

লোকনৃত্য

লোকনৃত্যে ধ্রুপদী নৃত্যের তুলনায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে কিছুটা ভিন্নতা রয়েছে। এর বিশেষ বৈশিষ্ট্যগুলোর মধ্যে রযেছেঃ লোকনৃত্যের ক্ষেত্রে বিশেষ পোশাক পরিধান করার কোন বাধ্যবাধকতা নেই। প্রায় সব দেশের লোকনৃত্যের একটি সাধারণ বৈশিষ্ট্য হলো দলবদ্ধতা। লোকনৃত্য ছন্দ শাস্ত্রের কঠোর রীতি অনুসরণ করে না। লোকনৃত্যের গতি, ছন্দ, অঙ্গ কৌশল অনেকটা বাস্তব জীবনের কাছাকাছি।

হংকং রন্ধনশৈলী
                                               

হংকং রন্ধনশৈলী

হংকং রন্ধনশৈলী প্রধানত ক্যান্টনিজ রন্ধনশৈলী, ব্রিটিশ রন্ধনশৈলী, পশ্চিমা রন্ধনশৈলী, অ ক্যান্টনিজ রন্ধনশৈলী, জাপান ও দক্ষিণ পূর্ব এশীয় রন্ধনশৈলী দ্বারা প্রভাবিত। অতীতে হংকং ব্রিটেনের উপনিবেশ ছিলো এবং এর বাণিজ্য বন্দরের দীর্ঘ ইতিহাস আছে। পথপার্শ্বের স্টল থেকে আধুনিক উচ্চমানের রেস্তোরাঁ বিভিন্ন শ্রেণীর মানুষের জন্য হংকং বহুবিধ খাদ্য পরিবেশন করে।