Back

ⓘ সংহুয়া নদী




সংহুয়া নদী
                                     

ⓘ সংহুয়া নদী

সংহুয়া নদী চীনের অন্যতম প্রধান এবং আমুর নদীর দীর্ঘতম উপনদী। নদীটি ১,৪৩৪ কিলোমিটার দীর্ঘ। এটি চীন-উত্তর কোরিয়ার সীমান্তে চাংবাই পর্বতমালা উদ্ভুত হয়ে চীনের উত্তর-পূর্ব অঞ্চলের চিলিন ও হেইলুংচিয়াং প্রদেশের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়ে আমুর নদীতে পতিত হয়েছে। সংহুয়া নদীর অববাহিকার আয়তন ৫,৫৭,১৮০ বর্গকিলোমিটার । নদীটির বার্ষিক পানি প্রবাহের পরিমাণ ২,৪৬৩ ঘনমিটার প্রতি সেকেন্ড ।

চীনের উত্তর-পূর্ব অঞ্চল অতি সমতল হওয়ায় নদীটি বহুবার গতিপথ পরিবর্তন করেছে এবং সার্পিলাকার ধারণ করেছে। গতিপথ পরিবর্তনের নিদর্শন সরূপ এর গতিপথের দুইপাশে অশ্বক্ষুরাকৃতির জলাশয় আছে।

                                     

1. ভূগোল

সংহুয়া নদী চীন ও উত্তর কোরিয়ার সীমান্ত সংলগ্ন স্বর্গ হ্রদ হতে উৎপন্ন হয়ে উত্তর দিকে প্রবাহিত হয়েছে।

নদীটির যাত্রাপথ বাইসান, হংশি ও ফেংম্যান জলবিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্রের বাঁধ দ্বারা বাধাগ্রস্থ হয়েছে। ফেংম্যান বাঁধের কারণে ৬২ কিলোমিটার ৩৯ মাইল দীর্ঘ একটি হ্রদের সৃষ্টি হয়। ফেংম্যান বাঁধ অতিক্রম করে সংহুয়া নদীর দ্বিতীয় শাখা বের হয়েছে। এই শাখাটি উত্তর দিকে চিলিন প্রদেশে প্রবেশ করে। নদীটি চিলিন প্রদেশের উপর দিয়ে উত্তর পশ্চিম দিক বরাবর প্রবাহিত হয়ে দান শহরের নিকট নেন নদীর সাথে মিলিত হয়ে মূল সংহুয়া নদী হিসেবে প্রবাহিত হয়।

এরপর নদীটি পূর্বদিকে প্রবাহিত হয়ে হারবিন শহর অতিক্রম করে। আরও সামনে অতিক্রম করে সংহুয়া নদী দক্ষিণ দিক থেকে অশি নদী এবং এরপর উত্তর দিক থেকে হুলান নদীর সাথে মিলিত হয়।

২০০৭ সালে হারবিন শহরের ৫০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত বায়ান কাউন্টিতে সংহুয়া নদীর উপর একটি নতুন বাঁধ নির্মাণ করা হয়। এই বাঁধের কারণে সৃষ্ট হ্রদটি দাদিংশান চীনা: 大顶山 ; ফিনিন: Dàdǐng Shān ; আক্ষরিক: "Big Topped Mountain" জলাধার নামে পরিচিত।

সংহুয়া নদী আরো উত্তর দিকে জিয়ামুসি শহরের পাশ দিয়ে প্রবাহিত হয়ে ছোট খিংআন পর্বতমালার দক্ষিণ দিক দিয়ে হেইলুংচিয়াং প্রদেশের তংজিয়াং-এর কাছে আমুর নদীর সাথে মিশেছে।

শীত ঋতুতে, নভেম্বর হতে মার্চ পর্যন্ত, সংহুয়া নদী জমে বরফে রূপ নেয়, এসময় নদীর বেশিরভাগ অংশই তুষার আবৃত থাকে। বসন্তে তাপমাত্রা বাড়ার কারণে বরফ গলতে থাকে। এ সময় সংহুয়াতে বছরের যেকোন সময়ের চেয়ে বেশি পানি প্রবাহ দেখা যায়।

চীনের চিলিন, হারবিন ও জিয়ামুসি শহর সংহুয়া নদীর তীরে অবস্থিত। হারবিন শহর পর্যন্ত এই নদীতে মধ্যম সারীর নৌযান চলাচল করতে পারে। এছাড়াও ছোট নৌযান দিয়ে চিলিন এবং নেন নদীপথে কিকিহার পর্যন্ত যাতায়াত করা যায়।

                                     

2. দূষণ

২০০৫ সালের নভেম্বরে সংহুয়া নদীতে বেনজিনের দূষণ ঘটে। দূষণের ফলে হারবিনে পানি সরবরাহ কার্যক্রম বন্ধ রাখতে হয়েছিল। বেনজিনের দূষণ চীন-রাশিয়া সীমান্তে আমুর নদী পর্যন্ত দীর্ঘ ৮০ কিলোমিটার ৫০ মাইল ছড়িয়ে পড়েছিল। ২০১০ সালের ২৮ জুলাই, বন্যায় চিলিন শহরের দুইটি রাসায়নিক কারখানা থেকে কয়েক হাজার ব্যারেল রাসায়নিক তরল নদীতে ভেসে যায়। এই রাসায়নিক দ্রব্যের মধ্যে ১৭০ কিলোগ্রাম ৩৭০ পা ট্রাইমিথাইলসিলাইল ক্লোরাইড ও হেক্সামিথাইল ডাইসিলক্সেনের মত বিস্ফোরক পদার্থও ছিল। ২০১৬ সালে সংহুয়া নদীতে মৃদু বন্যার কারণে চিলিন শহরের নদী তীরবর্তী এলাকাগুলি নিমজ্জিত হয়েছিল।