Back

ⓘ ভাখশ নদী




ভাখশ নদী
                                     

ⓘ ভাখশ নদী

ভাখশ নদী, যেটি উত্তর-মধ্য তাজিকিস্তানে সুরখোব) নামেও পরিচিত এবং কির্গিজস্তানে কাইজেল-সু নামে পরিচিত, একটি মধ্য এশিয়ার নদী এবং তাজিকিস্তানের অন্যতম প্রধান নদী। এটি আমু দরিয়ার একটি উপনদী।

                                     

1. ভূগোল

নদীটি পামীর পার্বত্য অঞ্চলের মধ্য দিয়ে প্রবাহিত যার কারণে প্রায়ই নদীটির গিরিপথ সংকীর্ণ হয় এবং গভীর গিরিখাতের সৃষ্টি হয়। তাজিকিস্তানে সবচেয়ে বড় হিমবাহগুলো, যার মধ্যে রয়েছে ফেডচেঙ্কো এটি মেরু অঞ্চলগুলোর বাইরে বিশ্বের সবচেয়ে দীর্ঘতম হিমবাহ এবং আব্রামভ হিমবাহ, ভাখশ নদীতে জল নিষ্কাশন করে থাকে। এর বৃহত্তম উপনদী মুকসু এবং ওবিহিংউ। ওবিহিংউ ও সুরখোব নদীদ্বয়ের সঙ্গমস্থলে, ভাখশ নদীটির উৎপত্তি হয়েছে।

পামীর থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর, নদীটি দক্ষিণ-পশ্চিম তাজিকিস্তানের উর্বর নিম্নভূমির মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়। তাজিকিস্তান ও আফগানিস্তানের সীমান্তে পাঞ্জ নদী দিয়ে প্রবাহিত হওয়ার মাধ্যমে এটি শেষ হয়। এই সঙ্গমস্থল থেকেই জন্ম হয় মধ্য এশিয়ার অন্যতম প্রধান নদী আমু দরিয়ার। পূর্ব ইউএসএসআর-তে অধুনা বিলুপ্ত ক্যাস্পিয়ান বাঘের সর্বশেষ যে আবাসস্থল তিগ্রোভায়া বল্কা নেচার রিসার্ভ ছিল, তা এই ভাখশ এবং পাঞ্জ নদীর সঙ্গমস্থলেই অবস্থিত।

ভাখশের অববাহিকা এলাকা ৩৯,১০০ বর্গ কিমি, যার মধ্যে ৩১,২০০ বর্গ কিমি ৭৯.৮% তাজিকিস্তানের অভ্যন্তরে অবস্থিত। নদীটি আমু দারিয়ার মোট প্রবাহের প্রায় ২৫% অবদান রাখে। এর গড় নিষ্কাশন ৫৩৮ ঘনমিটার/সেকেন্ড এবং বার্ষিক নিষ্কাশন ২০ ঘনকিমি। যাহোক, যেহেতু ভাখশ মূলত হিমবাহের তুষার-নির্গমনের উপর নির্ভরশীল, এর প্রবাহ হার শীতকালে এবং গ্রীষ্মকালে সম্পূর্ণ ভিন্ন থাকে। নুরেক বাঁধের পরিমাপ নির্দেশ করে যে, শীতকালীন প্রবাহের হার ১৫০ ঘনমিটার/সেকেন্ড এবং গ্রীষ্মকালীন মাসগুলোতে প্রবাহের হার ১৫০০ ঘনমিটার; যা শীতকালীন প্রবাহের দশগুণ।

                                     

2. অর্থনৈতিক উন্নয়ন

মানব ব্যবহারের জন্য ভাখশ ব্যাপকভাবে বিকশিত হয়েছে। বিদ্যুৎ, অ্যালুমিনিয়াম এবং তুলা তাজিকিস্তানের অর্থনীতির মূল অংশ এবং ভাখশ এই তিনটি সেক্টরের সাথেই জড়িত। ২০০৫ সাল পর্যন্ত জলবিদ্যুৎ দেশের বিদ্যুৎ সরবরাহের ৯০% সরবরাহ করেছিল এবং ভাখশের উপরে নির্মিত পাঁচটি বাঁধ থেকে এই বিদ্যুৎ উৎপাদন হয়; যাদের মধ্যে প্রধান বাঁধ হলো বিশ্বের দ্বিতীয় উচ্চতম বাঁধ নুরেক। নুরেকের নিম্ন অববাহিকায় রয়েছে আরো চারটি বাঁধ যথা: বাইপাজা, সাংতুদা ১, সাংতুদা ২ এবং গোলভন্নয়া বাঁধ। এই বাঁধগুলোর জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের কল্যাণে তাজিকিস্তান বিশ্বের মাথাপিছু সর্বোচ্চ জলবিদ্যুৎ উৎপাদকে পরিণত হয়েছে। এই জলবিদ্যুৎ তাজিকিস্তানের শিল্প উৎপাদন ও রপ্তানি রাজস্বের প্রধান উতৎস, তুরসুঞ্জোদাতে অবস্থিত তাজিক অ্যালুমিনিয়াম কোম্পানির অ্যালুমিনিয়াম উৎপাদন ক্ষমতা বাড়িয়েছে। তুলো উৎপাদনের সেচের কাজেও ভাখশের জল ব্যবহৃত হয়; ভাখশ থেকে আহরিত জলের ৮৫%-ই সেচের কাজে ব্যবহার করা হয়।

                                     

2.1. অর্থনৈতিক উন্নয়ন সোভিয়েত যুগ

সোভিয়েত ইউনিয়নের নেতারা দেশের নিম্ন-বিকাশমান অঞ্চলের বিশেষত তাজিকিস্তানের সোভিয়েত সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র যা অধুনা স্বাধীন, তাজিকিস্তানের পূর্বসূরী হিসেবে বিকাশের ওপর জোর দিয়েছিল। ভ্লাদিমির লেনিনের মতাদর্শটি কেবলমাত্র আদিবাসীদের ঔপনিবেশিক শোষণের প্রতিবাদ করার উপায় হিসেবে শিল্পের বিকেন্দ্রীকরণকে চিহ্নিত করেনি, তদানীন্তন রাশিয়ার কৌশলগত লক্ষ্য ছিল বিশেষ করে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, যখন এটি পূর্ব জার্মানি থেকে দূরে পূর্ব দিক থেকে সরানো হয়েছিল। এটি মনে করা হয়েছিল যে তাজিকিস্তানের সম্ভাব্য জলবিদ্যুৎ উৎপাদনের দ্বারা এই শিল্পায়নে জ্বালানী সরবরাহ করা হবে।

                                     

2.2. অর্থনৈতিক উন্নয়ন তাজিক স্বাধীনতার পরে

সোভিয়েত মধ্য এশিয়ার একটি কেন্দ্রীয়ভাবে পরিকল্পিত অর্থনৈতিক দেশ ছিল, যা বিভিন্ন প্রজাতন্ত্রের মধ্যে একে অপরের সাথে সম্পদ ভাগ করে নেওয়ার পদ্ধতিতে চলতো। গ্রীষ্মের সময়, যখন নদী প্রবাহ সর্বোচ্চ থাকত, তাজিকিস্তান মূল প্রজেক্টের অবস্থিত ভাখশ নদীর উপর নির্মিত জলাধারগুলো থেকে জল সরবরাহ করত, যা জলবিদ্যুৎ উৎপাদনে সাহায্য করত এবং সেই বিদ্যুৎ দিয়ে উজবেকিস্তান এবং তুর্কমেনিস্তানের বিভিন্ন সেচ প্রকল্পে পাম্প চালানো হতো। শীতকালে তাজিক বাঁধগুলো জল সঞ্চয় করত এবং জীবাশ্ম-জ্বালানি-সমৃদ্ধ নিম্ন অববাহিকার দেশসমূহ থেকে তাজিকিস্তানকে তেল এবং গ্যাসজাত বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হতো।

যাহোক, স্বাধীনতোত্তর সময় এই অঞ্চলে আঞ্চলিক সীমান্তবিরোধের কারণে, এই সিস্টেমটি ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছিল এবং এখনো কোনও সমঝোতা সমবায় ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি। নিম্ন অববাহিকার দেশগুলোর জ্বালানী সরবরাহ কম নির্ভরযোগ্য এবং আরো ব্যয়বহুল হচ্ছে এবং দরিদ্র তাজিকিস্তান শীতকালীন জলবিদ্যুৎ উৎপাদন বাড়িয়ে তুলতে পারছে না, কারণ তাহলে তা গ্রীষ্মে সেচ ও বিদ্যুৎকে বিপন্ন করবে। এই নির্ভরতাটি ২০০৮ এবং ২০০৯ সালের শীতকালে জ্বালানি সংকট সৃষ্টি করেছে, এমনকি রাজধানী শহর দুশানবেও এই বিদ্যুৎ সংকট দেখা দিয়েছিল। আন্তর্জাতিক ক্রাইসিস গ্রুপ কর্তৃক পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা গেছে, উচ্চতর জাতীয়তাবাদ এবং সীমান্ত বিরোধগুলো কেন্দ্রীয় এশিয়ায় জলবণ্টনের সমাধান করা জটিল।



                                     

3. পরিবেশের সমস্যা

ভাখশ অববাহিকায় কৃষিকাজের প্রাচুর্য, সার, কীটনাশক এবং লবণ দ্বারা নদীটিকে দূষিত করেছে। এছাড়াও, ভাখশের বাঁধের কাছে ভারী শিল্প থেকে রাসায়নিক পদার্থ ভূগর্ভস্থ পানিতে প্রবেশ করেছে, যার ফলে ভূপৃষ্ঠের জল আরও দূষিত হয়ে পড়েছে। তবে, সোভিয়েত ইউনিয়নের ভাঙ্গনের পরবর্তী পর্যায়ে, কৃষিতে সোভিয়েত ভর্তুকি হারিয়ে যাওয়াপর থেকেই, কৃষিজমিতে সার বা কীটনাশকের পরিমাণ কমেছে; এর ফলে ধীরে ধীরে নদীতে দূষণের মাত্রা কমছে। ২০০৮ সালের আর্থিক সংকট দারিদ্র্যতা আরো বাড়িয়েছে, যার ফলে দূষণ আরও কম হয়েছে।

যেহেতু ভাখশের জল অবশেষে আরাল সাগরে প্রবাহিত হয়, ভাখশের দূষণ সেখানে ইউট্রোফিকেশনেও অবদান রাখে।

                                     

3.1. পরিবেশের সমস্যা জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব

জলবায়ু পরিবর্তনের নিরিখে, পৃথিবীর অন্যতম সংবেদনশীল অঞ্চল পামীর পার্বত্য অঞ্চলের হিমবাহ দ্বারা ভাখশের প্রবাহ নিয়ন্ত্রিত হয়। ১৯৪০ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত তাজিকিস্তানের মোট তাপমাত্রায় ১.০-১.২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো বৃদ্ধি পেয়েছিল এবং যে সমস্ত হিমবাহ ভাখশকে জলপ্রবাহ দেয় তাদের অনেক বেশিমাত্রায় গলন হচ্ছিল। এদের মধ্যে, ফেডশেংকো ১৬-২০ মিটার/বছরে গলিত হয়। অক্সফাম ইন্টারন্যাশনাল অনুসারে, ২০৫০ সালের মধ্যে তাজিকিস্তানের ৩০% পর্যন্ত হিমবাহ সঙ্কুচিত বা অদৃশ্য হয়ে যেতে পারে। নদী প্রবাহে হ্রাস ভাখশের জলবিদ্যুৎ উৎপাদন কমিয়ে দিতে পারে এবং সেচের জন্য তাদেরকে জলের উপর নির্ভর করতে হবে, এর ফলে কৃষিভূমির ক্ষতি হতে পারে। অধিকন্তু, জলবায়ু পরিবর্তন যদি বৃষ্টিপাতের নিদর্শনকে প্রভাবিত করে তবে এটি নদী উপত্যকায় আরও বন্যা, ভূমিধস এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক দুর্যোগ সৃষ্টি করতে পারে।

                                     

4. ব্লকেজ

ভাখশ ভূমিকম্প সক্রিয় অঞ্চলে অবস্থিত এবং জলভূমির উচ্চতা বিশেষ করে বর্ষাকালে এবং ভূমিকম্পের কারণে প্রতি বছর শত ভূমিধস সৃষ্টি হয়। এই ভূমিকম্প প্রায়ই নদীর গতিপথ রুদ্ধ করে এবং ভূমিকম্প বাঁধ সৃষ্টি করে।

এই সমস্ত আশংকাকে মান্যতা দিয়ে, এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক ২০০২ সালের ভূমিধসের প্রতিক্রিয়ায় তাজিকিস্তানের সরকারকে উপত্যকার ঢালগুলো স্থিতিশীল করতে এবং ভবিষ্যতে উপত্যকা অবরোধের সম্ভাবনাকে হ্রাস করার জন্য স্বল্প সুদের ঋণ প্রদান করে।

                                     

5. বহিঃসংযোগ

  • Map of major river drainage basins within Tajikistan
  • Partial map of the Vakhsh with locations of the rivers nine dams
  • Index of maps and graphs related to Tajikistan water resources