Back

ⓘ দিনাজপুর জিলা স্কুল




                                     

ⓘ দিনাজপুর জিলা স্কুল

দিনাজপুর জিলা স্কুল দিনাজপুর সহ উত্তরাঞ্চলের জেলার প্রতিটি ছাত্রের একটি স্বপ্নের নাম। এটি দিনাজপুর শহরের সদর হাসপাতাল সংলগ্ন এবং দিনাজপুর পৌরসভার সামনে অবস্থিত।১৮৫৪ সাল থেকে শুরু করে আজ পর্যন্ত স্কুলটি সুনামের সাথে কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। দিনাজপুর জিলা স্কুল বহু ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক। দেশে যতগুলা জিলা স্কুল আছে তার মধ্যে শুধুমাত্র দিনাজপুর জিলা স্কুলেই দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার মানচিত্র পাথরের সুচারুকার্যে তৈরি করা হয়েছে। এটি দেশের অন্যতম সেরা বিদ্যালয়।

                                     

1. ইতিহাস

এক সময় এটি এক প্রাচীন রাজাদের কাচারি ছিল। ১৮৪৮ সালে বিজয় চত্রবর্তী নামে এক সমাজসেবক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা করেন। পূর্বে বিদ্যালয়টিতে শুধু প্রাথমিক স্তরের শিক্ষাই দান করা হত। প্রত্যেক জেলায় একটি করে সরকারি বিদ্যালয় থাকা আবশ্যক, ১৮৫৪ সালে জমিদারের পুরাতন কাঁচারীতে সরকারের শিক্ষা সম্প্রসারণ এই নীতির আওতায় মাধ্যমিক পর্যায়ের পাঠদানের কার্যক্রমও শুর হয় এবং জিলা স্কুলের মর্যাদা লাভ করে। ১৮৫২ সালে বিদ্যালয়টি দিনাজপুর শহরের কেন্দ্রস্থলে স্থানান্তরিত করা হয়। এখানে তৃতীয় শ্রেণী থেকে দশম শ্রেণী পর্যন্ত পাঠদান করা হয়।

১৯৯২ সালে উক্ত ভবনটি ভেঙ্গে নতুন দ্বিতল ভবন নির্মিত হয়। বর্তমানে এটি ত্রিতল বিশিষ্ট ভবন। এখানে অন্যান্য তিনটি তিনতলা ভবন রয়েছে। অডিটোরিয়াম ও শহিদ মিনার রয়েছে। তিনটি দরজা রয়েছে।

                                     

2. শিক্ষা কার্যক্রম

সাধারণত স্কুলটি দুই শিফটে পাঠ কার্যক্রম পরিচালনা করে থাকে।এখানে ছাত্রদের জন্য লাইব্রেরী আছে। কিন্তু সেটিতে তেমন ভালো বই নেই। নিজস্ব হোস্টেল রয়েছে যেখানে বিশাল বড় খেলার মাঠ আছে। এছাড়াও এখানে অন্যান্য সহপাঠ কার্যক্রম রয়েছে। যেমন-স্কাউট, বিএনসিসি, ডিবেট, কালচারাল ক্লাব ইত্যাদি।

                                     

3. উল্লেখযোগ্য প্রাক্তন ছাত্র

যে সব খ্যাতনামা ব্যক্তি এই বিদ্যালয়ের ছাত্র ছিলেন, তাদের মধ্যে কয়েকজনের নাম উল্লেখ করা হল:

  • মোহাম্মদ ফরহাদ - বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সভাপতি, জাতীয় সংসদের সাবেক সদস্য, বাকশালের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য।
  • আইনুন নিশাত - বাংলাদেশী ইমেরিটাস অধ্যাপক, পানি সম্পদ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিশেষজ্ঞ।
  • রামপ্রাণ গুপ্ত - বিখ্যাত ঐতিহাসিক ও লেখক।
  • মোহাম্মদ আনোয়ারুল আজিম - শহীদ বুদ্ধিজীবী।
  • এ. টি. এম. আফজাল - আইনবিদ এবং ৮ম প্রধান বিচারপতি।